মুরুব্বি মুরুব্বিআনা এবং কাঞ্চনজঙ্ঘা শব্দের ব্যুৎপত্তি

ড. মোহাম্মদ আমীন

মুরুব্বি ও মুরুব্বিআনা
মুরুব্বি আরবি উৎসের শব্দ। এর অর্থ— (বিশেষ্যে) অভিভাবক, পৃষ্ঠপোষক, রক্ষক, উপদেষ্টা। সাধারণভাবে বাংলায় শব্দটি গুরুজন; শ্রদ্ধাভাজন, প্রবীণ প্রভৃতি অর্থে ব্যবহৃত হয়।
মুরুব্বিআনা: আরবি ‘মুরুব্বি’ শব্দের সঙ্গে ফারসি ‘আনা’ যুক্ত হয়ে গঠিত হয়েছে মুরুব্বিয়ানা। শব্দটি বিশেষ্যে (ব্যাঙ্গার্থে) মুরুব্বিসুলভ আচরণ, মাতব্বরি প্রভৃতি অর্থে ব্যবহৃত হয়।
ড. মোহাম্মদ আমীন; কোথায় কী লিখবেন বাংলা বানান: প্রয়োগ ও অপপ্রয়োগ, পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স লি.

কাঞ্চনজঙ্ঘা

বাংলা একাডেমি আধুনিক বাংলা অভিধানমতে, কাঞ্চনজঙ্ঘা [কাঞ্চন+√জঙ্ঘ+অ+ আ(টাপ)] অর্থ— (বিশেষ্যে) কাঞ্চনপ্রভ জঙ্ঘা; (আলংকারিক) উদীয়মান সূর্যের আলোয় সোনালি রং ধারণ করে বলে হিমালয় পর্বতমালার একটি শৃঙ্গের নাম। প্রসঙ্গত, কাঞ্চন শব্দের অর্থ— (বিশেষ্যে) সোনা এবং (বিশেষেণে) স্বর্ণময়, স্বর্ণবর্ণবিশিষ্ট। কাঞ্চনপ্রভা অর্থ সোনালি আভা,  ‍সুবর্ণপ্রভা।
 
অনেকে বলেন, কাঞ্চনজঙ্ঘা শব্দটি তৎসম নয়। তাদের অভিমত, এটি স্থানীয় “কাং চেং জেং গা” কথা থেকে উদ্ভূত। তেনজিং নোরগে তাঁর , ম্যান অব এভারেস্ট (Man of Everest) গ্রন্থে শব্দটির অর্থ লিখেছেন— “তুষারের পাঁচ ঐশ্বর্য”। এই পর্বতমালায় রয়েছে পাঁচটি ‍শৃঙ্গ।চারটির উচ্চতা ৮, ৪৫০ মিটারের ঊর্ধ্বে। প্রচলিত বিশ্বাস; ধনদৌলত ঈশ্বরের পাঁচ ভান্ডারের প্রতিনিধিত্ব করে, স্বর্ণ, রূপা, রত্ন, শস্য, এবং পবিত্র পুস্তক। কাঞ্চন মানে সোনা, জঙ্ঘা মনে উরু বা কোমর। এই পা তবে তেনজিং সাহেবের বর্ণনা সঠিক হলেও কাঞ্চনজঙ্ঘা শব্দটি অতৎসম হয়ে যায় না। কাঞ্চনজঙ্ঘা  নামটি অনেক প্রাচীন। সংস্কৃত বিভিন্ন সাহিত্যে এর উপস্থিতি রয়েছে।
 
কাঞ্চন মানে সোনা, জঙ্ঘা মনে উরু। এই পাহাড়ে সূর্য়ের আলো পড়লে মনে হয় চিৎ হয়ে শুয়ে থাকা অবস্থায় কারো নাঙ্গা উরুদ্বয়ে সোনালি আভা ছড়িয়ে পড়ছে। তাই এর নাম কাঞ্চনজঙ্ঘা। আবার অনেকের মতে, কাঞ্চনজঙ্ঘার পাঁচটি চূড়া হচ্ছে ঈশ্বরের পাঁচ সম্পদের ভাণ্ডার বা প্রতীক। এই পঞ্চ সম্পদ হচ্ছে: স্বর্ণ, রূপা, রত্ন, শস্য, এবং পবিত্র পুস্তক। নামকরণের কারণ যাই হোক না, কাঞ্চনজঙ্ঘা তৎসম শব্দ।
 
 জোশ
মানুষ বিহ্বল বা হতবুদ্ধি অবস্থা প্রকাশ করার জন্য বলে- আরে জোশ। এই “জোশ” অর্থ কী?  ফারসি ভাষায় জোশ অর্থ শক্তি বা বল। সম্ভবত সেখান থেকেই শব্দটা বাংলায় অর্থ পরিবর্তিত হয়ে ব্যবহার হয়েছে।  অনেকের মতো, এটা আসলে কোনো বহির্ভাষা হতে আগত নয়। অনানুষ্ঠানিক কথোপকথনে  তৈরি হয়েছে। এগুলো  স্ল্যাং (Slang)-এর অন্তর্ভুক্ত।
 
লিংক: https://draminbd.com/মুরুব্বি-মুরুব্বিআনা-এবং/

শুবাচ গ্রুপের লিংক: www.draminbd.com

error: Content is protected !!