মুসম্মৎ মোসাম্মৎ মোসম্মৎ

ড. মোহাম্মদ আমীন

মুসম্মৎ মোসাম্মৎ মোসম্মৎ

বাংলাদেশে মহিলাদের নামের পূর্বে মুসম্মৎ, মোসাম্মৎ, মুসম্মৎ ব্যবহার করা হয়।শব্দগুলো আরবি “মুসাম্মত” থেকে উদ্ভূত। যার কাছাকাছি উচ্চারণ— মুসম্মৎ, মোসাম্মৎ, মোসম্মৎ। আরবি مُسَمَّى মুসাম্মা (পুংলিঙ্গ), مُسَمَّىاة মুসাম্মাহ (স্ত্রীলিঙ্গ) শব্দদ্বয়ের অর্থ “নাম রাখা হয়েছে এমন।” ইংরেজি ভাষায় যাকে বলা হয়— Named। শুবাচি মোহাম্মদ মিফতাহুল ইসলাম তালহা লিখেছেন, “মোসাম্মাত আত তাসমিয়াহ ক্রিয়াবাচক বিশেষ্য (মাসদার) থেকে গঠিত কর্মবাচক বিশেষ্যের (মাফউল) এক বচন, স্ত্রীলিঙ্গ (ওয়াহিদ মুআন্নাস) এর রূপ (সিগাহ)। অর্থ হলো— নাম রাখা হয়েছে এমন একজন মহিলা। সে হিসেবে কারও নাম যদি মোসাম্মৎ রাবেয় বেগম হয়, আরবিতে তার অর্থ হবে— মেয়েটির নাম রাবেয়া বেগম রাখা হলো । 

মুসম্মৎ, মোসাম্মৎ, মোসম্মৎ আরবি শব্দের অবিকল উচ্চারণ নয়, কাছাকাছি উচ্চারণ।  এক ভাষার শব্দের অন্য ভাষায় অবিকল উচ্চারণ প্রায়শ অসম্ভব। এমন দাবি করাও হাস্যকর। বিশেষ করে আরবি ভাষার সঙ্গে বাংলার সামঞ্জস্য খোঁজা সমীচীন নয়। বাংলার সঙ্গে আরবির উৎস ও ব্যুৎপত্তিগত তফাত অনেক প্রবল। বাংলা ভাষায় ব্যবহৃত আরবি ফারসি উর্দু শব্দের অভিধান অনুযায়ী মুসম্মৎ, মুসাম্মৎ, মসম্মৎ প্রভৃতি শব্দের অর্থ— মুসলমান মহিলাদের নামের পূর্বে ব্যবহৃত উপাধি, শ্রীযুক্ত, শ্রীমতি প্রভৃতি। বাংলা একাডেমি ব্যবহারিক (ব্যাবহারিক) বাংলা অভিধান [পরিমার্জিত সংস্করণ ডিসেম্বর ২০০০-এর অষ্টাদশ পুনর্মুদ্রণ: মাঘ ১৪২১/জানুয়ারি ২০১৫] অনুযায়ী শব্দটির  প্রমিত বানান ‘মুসম্মৎ’ এবং অপ্রমিত বানান ‘মোসাম্মাৎ’ ও ‘মোসম্মৎ’।

আরবি থেকে আগত মুসম্মৎ মোসাম্মাৎ বা মোসম্মৎ শব্দের উৎস-অর্থ যাই হোক না কেন, বাংলায় শব্দটি এখন একটি নির্দিষ্ট বৈশিষ্ট্য, রূপ, প্রয়োগ, স্বভাব, ব্যাবহারিক স্থিরতা ও অর্থ ধারণ করেছে। এখন এই বাংলা শব্দটিকে আরবির চরিত্রে বিশ্লষণ করা সংগত নয়। বাংলায় সংস্কৃতের মতো আরবি ব্যাকরণ চলে না।  এটি এখন বাংলা শব্দ এবং এর অর্থ— মুসলমান মহিলাদের নামের পূর্বে ব্যবহৃত উপাধি, শ্রীযুক্ত, শ্রীমতি প্রভৃতি।

আরও আরো
বাংলা ‘আরও’ এবং ‘আরো’ শব্দের অর্থ বিশেষণে এছাড়া, অন্য, অধিকতর, অপেক্ষাকৃত এবং ক্রিয়াবিশেষণে অধিকন্তু। বাংলা একাডেমি আধুনিক বাংলা অভিধানমতে, ‘আরও’ শব্দটি মূলত ‘আরো’ শব্দের সংগততর বানান এবং ‘আরো’ শব্দটি ‘আরও’ শব্দের প্রচলিত বানান। যেহেতু ‘আরও’ সংগততর বানান, সেহেতু উদ্দিষ্ট অর্থ প্রকাশে ‘আরও’ লেখা সমীচীন। তবে ‘আরো’ লিখলে ভুল হবে এমন বলা যায় না। আমি সাধারণত সংগততর বানানটাই (আরও) লিখি।


All Link

বিসিএস প্রিলি থেকে ভাইভা কৃতকার্য কৌশল

ড. মোহাম্মদ আমীনের লেখা বইয়ের তালিকা

বাংলা সাহিত্যবিষয়ক লিংক

বাংলাদেশ ও বাংলাদেশবিষয়ক সকল গুরুত্বপূর্ণ সাধারণজ্ঞান লিংক

বাংলা বানান কোথায় কী লিখবেন এবং কেন লিখবেন/১

বাংলা বানান কোথায় কী লিখবেন এবং কেন লিখবেন/২

বাংলা বানান কোথায় কী লিখবেন এবং কেন লিখবেন /৩

কীভাবে হলো দেশের নাম

ইউরোপ মহাদেশ : ইতিহাস ও নামকরণ লিংক

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/১

দৈনন্দিন বিজ্ঞান লিংক

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/২

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/৩

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/৪

কীভাবে হলো দেশের নাম

সাধারণ জ্ঞান সমগ্র

সাধারণ জ্ঞান সমগ্র/১

সাধারণ জ্ঞান সমগ্র/২

বাংলাদেশের তারিখ

ব্যাবহারিক বাংলা বানান সমগ্র : পাঞ্জেরী পবিলেকশন্স লি.

শুদ্ধ বানান চর্চা প্রমিত বাংলা বানান বিধি : বানান শেখার বই

কি না  বনাম কিনা এবং না কি বনাম নাকি

মত বনাম মতো : কোথায় কোনটি এবং কেন লিখবেন

ভূ ভূমি ভূগোল ভূতল ভূলোক কিন্তু ত্রিভুবন : ত্রিভুবনের প্রিয় মোহাম্মদ

মত বনাম মতো : কোথায় কোনটি এবং কেন লিখবেন

প্রশাসনিক প্রাশাসনিক  ও সমসাময়িক ও সামসময়িক

error: Content is protected !!