যেখানে কোনো যুবতী নেই সব বুড়ি

ড. মোহাম্মদ আমীন

[এগুলো কোনো ব্যাকরণিক বিধি নয়, শব্দকে সহজে মুখস্থ রাখার স্মৃতিজাগানিয়া কৌশল মাত্র।]

অধীন বানানে ঈ-কার কেন?

‘ই-কার’ বর্ণের সামনে এবং ‘ঈ-কার’ বর্ণের পেছনে বসে। যেমন : যেমন: ধনী ও ধ্বনি। ‘ই-কার’ বর্ণকে সামনে থেকে এবং ‘ঈ-কার’ বর্ণকে পেছন থেকে আচ্ছাদন বা ছাতার মতো জড়িয়ে ধরে। ‘অধীন’ শব্দের অর্থ অনুগত, বশীভূত, অধস্তন প্রভৃতি। কাউকে অধীন হতে হলে তাকে সামনের আচ্ছাদন বা ছাতা সরিয়ে পিছনে নিয়ে যেতে হয়।‘ ঈ-কার’ পেছনে অবস্থানকারী আচ্ছাদন বা ছাতা। এজন্য অধীন বানানে ‘ঈ-কার’। শুধু অধীন কেন, অধীন থাকতে হয় এমন শব্দের বানানেও ‘ঈ-কার’। যেমন : অধীনতা। যার কাছে অধীন থাকতে হয় তার বানানেও ‘ঈ-কার’। যেমন: অধীশ, অধীশ্বর, অধীক্ষক। কারণ তাকে অধীনস্তদের সামনে উপস্থাপন করতে হলে আচ্ছাদনকে পেছনে নিয়ে যাওয়ার প্রয়োজন হয়। লেখাপড়ার করার সময় চোখের সামনে থেকে আচ্ছাদন সরিয়ে ফেলতে হয়। এজন্য অধীত, অধীতি, অধীয়মান, অধীয়ান শব্দের বানানে ‘ঈ-কার’। কারো জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করার সময় বার বার সামনের দিকে তাকাতে হয়। তাই সামনে কোনো আচ্ছাদন রাখা যায় না। এজন্য অধীর, অধীরচিত্ত, অধীরতা প্রভৃতি শব্দের বানানে ঈ-কার।

যেখানে কোনো যুবতী নেই সব বুড়ি

ছোটোবেলা থেকে জেনে আসছি যুবকের স্ত্রী, যুবতী। অর্থাৎ যুবকের স্ত্রীলিঙ্গ যুবতী। এখন যুবকের স্ত্রী, ‘যুবতী’ হয় না, ‘যুবতি’ হয়। বাংলা একাডেমি আধুনিক বাংলা অভিধানমতে, বাক্যে বিশেষণ হিসেবে ব্যবহৃত সংস্কৃত ‘যুবতি (যুবন্+তি)’ শব্দের অর্থ প্রাপ্তযৌবনা, পূর্ণবয়স্কা, তরুণী। ‘তরুণ’ শব্দের স্ত্রীলিঙ্গ যদি ‘তরুণী’ হয় তাহলে ‘যুবক’ শব্দের স্ত্রীলিঙ্গ কেন ‘যুবতী’ হবে না?
একসময় তারা ‘যুবতী’ ছিল। তখন তাদের পেছনে অবস্থিত ‘ঈ- ী-কার’ ঊরুতে আচ্ছাদন এবং ওপরে ঘোমটার কাজ করত। আধুনিক কালের যুবতিরা অগ্রগামী। তাদের পেছনে তাকানোর প্রয়োজন হয় না। এজন্য পেছনে কোনো আচ্ছাদন কিংবা ঘোমটা লাগে না। তাই আধুনিক প্রমিত বানানে যুবতীর পশ্চাতের আচ্ছাদন ও ঘোমটা অর্থাৎ ‘ঈ- ী-কার’ পেছন থেকে সামনে এসে ‘–ি’ হয়ে গিয়েছে। এজন্য ‘যুবতী’ বানান এখন ‘যুবতি’। তাই বাংলা একাডেমি আধুনিক বাংলা অভিধানে কোনো ‘যুবতী’ পাওয়া যায় না, সব যুবতি।
তাহলে ‘তরুণী’ বানানে মূর্ধন্য-ণ কেন?
‘তরুণ’ বানানে ‘মূর্ধন্য-ণ’ বলে ‘তরুণী’ বানানে ‘ঈ-কার’। ‘মূর্ধন্য-ণ’-এর পা লম্বা বলে নিজেকে পেছন থেকে ঢেকে রাখার জন্য সাধারণত ‘ঈ-কার’ বেশি পছন্দ করে। যেমন: বাণী ইত্যাদি। ‘বুড়ি’ বানানে ‘ই-কার’ কেন? তরুণী বা যুবতি বৃদ্ধ হলে সামনে লাঠি ধরতে হয়। এজন্য বুড়ি বানানে ‘ই-কার’।

সুত্র: ব্যাবহারিক প্রমিত বাংলা বানান সমগ্র, পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স লি.

বাংলাদেশ ও বাংলাদেশবিষয়ক সকল গুরুত্বপূর্ণ সাধারণজ্ঞান লিংক

বাংলা বানান কোথায় কী লিখবেন এবং কেন লিখবেন

পঙ্‌ক্তির শেষে শব্দ ভাঙার নিয়ম

স্ত্রৈণ শব্দের বিপরীতার্থক শব্দ কী

স্ত্রীবাচক শব্দে পুরুষাধিপত্য

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/১

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/২

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/৩

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/৪

সাধারণ জ্ঞান সমগ্র/১

সাধারণ জ্ঞান সমগ্র/২

কীভাবে হলো দেশের নাম

error: Content is protected !!