য-ফলা বিধি: শব্দের প্রথমে য-ফলা ও য-ফলা আ-কার; শব্দের আদিতে কখন ব্য এবং কখন ব্যা হয়

ড. মোহাম্মদ আমীন

য-ফলা বিধি: শব্দের প্রথমে য-ফলা ও য-ফলা আ-কার; শব্দের আদিতে কখন ব্য এবং কখন ব্যা হয়

শব্দের আদিতে কখন ব্য এবং কখন ব্যা দেবেন?

‘ব্য’ আর ‘ব্যা’ নিয়ে বানানে অনেককে বিভ্রান্তিতে পড়তে হয়। বিশেষ করে ‘য-ফলা’ যদি শব্দের শুরুতে ব্যবহৃত ব-ধ্বনির সঙ্গে হয় তাহলে বিভ্রান্তি মারাত্মক হয়ে ওঠে।
কয়েকটি ব্যতিক্রম (ব্যক্তি এর উচ্চারণ বেক্‌তি) ব্যতিরেকে শব্দের আদিতে ব্যবহৃত ‘ব্য’ ও ‘ব্যা’-এর উচ্চারণ সাধারণত অভিন্ন।উচ্চারণ একই হওয়া সত্ত্বেও কোথাও ‘ব্য’ , আবার কোথায় ‘ব্যা’ দিতে হয়। তাই বানান লেখার সময় লেখক দ্বিধায় পড়ে যান। এই দ্বিধা দূরীভূত করার জন্য নিচের নিমোনিকগুলো খেয়াল করতে পারেন।
পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স লি.

. শব্দের আদিতে /ব্য/: /বি-/ উপসর্গের পর /অ/-বর্ণ দিয়ে শুরু হওয়া তৎসম শব্দ সন্ধিবদ্ধ হয়ে /ব্য/ হয়। যেমন: বি+অগ্র= ব্যগ্র; বি+অঙ্গ= ব্যঙ্গ; বি+অক্ত= ব্যক্ত, ব্যক্ত+ই= ব্যক্তি, বি+অঞ্জন= ব্যঞ্জন, বি+অতিক্রম= ব্যতিক্রম, বি+অতিব্যস্ত= ব্যতিব্যস্ত, বি+অতিরেক= ব্যতিরেক, ব্যত্যয়= বি+অত্যয়, বি+অধিকরণ= ব্যধিকরণ, বি+অবধান= ব্যবধান, বি+অবসায়= ব্যবসায়, বি+অবস্থা= ব্যবস্থা, বি+অবহার= ব্যবহার; বি+অভিচার= ব্যভিচার, বি+অয়= ব্যয়, বি+অর্থ=ব্যর্থ, বি+অস্ত= ব্যস্ত। অনুরূপ: ব্যঙ্গাত্মক, ব্যঙ্গোক্তি, ব্যজন, ব্যঞ্জনা, ব্যতিক্রম, ব্যতিব্যস্ত, ব্যতিরেক, ব্যতিহার, ব্যতীত, ব্যপদেশ, ব্যবচ্ছিন্ন,ব্যবচ্ছেদ, ব্যবসায়ী, ব্যবস্থাপক, ব্যবহৃত, ব্যষ্টি।

ব্যতিক্রম: /বি-/ উপসর্গ দিয়ে শুরু হয়নি এমন কিছু শব্দের বানানের শুরুতে /ব্য/ দেখা যায়। যেমন: ব্যথা, ব্যথিত, ব্যথী। মনে রাখবেন ব্যথা নিরাকার। তাই তার বানানেও আ-কার নেই। ব্যথা অনুভব করা যায়, আ-কার নেই বলে দেখা যায় না।
২. শব্দের আদিতে /ব্যা্/ এর প্রয়োগ: /বি-/ উপসর্গের পর /আ/ বর্ণ দিয়ে শুরু হওয়া তৎসম শব্দ সন্ধিবদ্ধ হলে /ব্যা/ হয়। যেমন: বি+আকুল = ব্যাকুল; বি+ আঘাত= ব্যাঘাত, বি+আখ্যা= ব্যাখ্যা, বি+আধি= ব্যাধি, বি+ আহত= ব্যাহত। অনুরূপ: ব্যাকরণ, ব্যাদান, ব্যাপক, ব্যাপার, ব্যাপী, ব্যাপৃত, ব্যাপক, ব্যাপ্ত, ব্যাপ্তি, ব্যায়াম, ব্যাহত।
৩. বিদেশি শব্দের বানানে অবিকল্প /ব্যা/: বিদেশি শব্দের বানানে অবিকল্প /ব্যা/ হয়, /ব্য/ হয় না। যেমন: ব্যাংক, ব্যাগ, ব্যাজ, ব্যাট, ব্যাটারি, ব্যাডমিন্টন, ব্যান্ড, ব্যান্ডেজ, ব্যাপটিস্ট, ব্যানার, ব্যারাক, ব্যারিস্টার, ব্যালট, ব্যালে, ব্যারিস্টার, ব্যারোমিটার ইত্যাদি। বিদেশি ও অতৎসম শব্দ পেলে চোখমুখ বন্ধ করে শব্দের প্রথমে ‘ব্যা’ দিয়ে দিন। বৈয়াকরণগণ আপনার কোনো ক্ষতি করতে পারবে না।

শব্দের বানানে য-ফলা-আকার: নিমোনিক

১. বিদেশি শব্দের বাংলা বানানের প্রথম বর্ণে য-ফলা চিহ্ন সর্বদা আ-কার (্যা) নিয়ে বসে। সুতরাং, বিদেশি শব্দের বানানের প্রথমে বর্ণে য-ফলা প্রয়োজন হলে তা আ-কার-সহ দেবেন। যেমন—
অ্যাকাডেমি, অ্যাটম, অ্যাটনি, অ্যাডভোকেট, অ্যান্টিবায়োটিক, অ্যান্টিসেপটিক, অ্যান্টেনা, অ্যাফিডেভিট, অ্যামনেস্টি, ক্যানসার, ক্যামেরা, ক্যাম্পাস, ক্যালসিয়াম, গ্যালারি, গ্যাস, গ্যালন, চ্যানেল, জ্যাকেট, ট্যানারি, ট্যাবলেট, ট্যাক্স, ট্যাক্সি, ট্যাংক, ড্যাশ, প্যাকেট, প্যাট্রল, প্যাডেল, প্যান্ডেল, প্যারা, প্যারাশুট, ফ্যাসিস্ট, ফ্যাসিবাদ, ফ্যাশন, ফ্যান, ফ্যাক্স, ব্যাংক, ব্যাকটেরিয়া, ব্যাগ, ব্যানার, ব্যান্ড, ব্যাবসা, ব্যারিস্টার, ব্যালট, ব্যারোমিটার, ভ্যান, ভ্যাকসিন, ম্যাংগানিজ, ম্যাক্সি, ম্যাগাজিন, ম্যাচ, ম্যাজিস্ট্রেট, ম্যাডাম, ম্যাজিক, ল্যাংবোট, ল্যান্ড, ল্যাবরেটরি, ল্যামিনেশন, ল্যাম্প, শ্যাম্পু, শ্যাম্পেন, স্যাকরা (ফারসি), স্যানাটোরিয়াম, স্যান্ডউইচ, স্যান্ডেল, স্যার, হ্যাজাক, হ্যাট্রিক, হ্যান্ডনোট, হ্যান্ডবিল, হ্যান্ডশেক, হ্যাট প্রভৃতি।
২. অতৎসম শব্দের বানানের প্রথম বর্ণে য-ফলা চিহ্ন আ-কার (্যা) নিয়ে বসে। অতএব, অতৎসম শব্দের বানানের প্রথমে য-ফলা প্রয়োজন হলে তা আ-কার-সহ দেবেন। যেমন—
অ্যাঁ, ক্যাঁচ, ক্যাঁচরক্যাঁচর,চ্যাঁচানো, চ্যাংড়া, চ্যালা, ছ্যাবলা, ছ্যামড়া, ছ্যাঁকা, ছ্যাঁদা, জ্যান্ত, জ্যাঠা, ঝ্যাঁটা, ট্যাঁক, ট্যাটা, ঠ্যাকা, ঠ্যালাগাড়ি, ঠ্যাসানো, ড্যাবড্যাব, ড্যাকরা, ত্যাঁদড়, ত্যাড়া, ত্যারচা, থ্যাঁতলা, থ্যাবড়ানো, ধ্যাৎ, ন্যাংটো, ন্যালা, ন্যাকা, ন্যাকড়া, ন্যাড়া, প্যাঁক, প্যাঁচা, প্যাঁদানি, ফ্যালনা, ফ্যালফ্যাল, ব্যাঙাচি, ব্যাটা, ভ্যাংচানো, ভ্যানভ্যান, ভ্যাবাচ্যাকা, ভ্যাপসা, ম্যাজম্যাজ, ম্যাদামারা, ল্যাং, ল্যাংটা, ল্যাজ, ল্যাটা, ল্যাতপ্যাত, ল্যাদাপোকা, শ্যাওলা, স্যাঁতসেঁতে, হ্যাটা,  হ্যাংলা, হ্যাঁ, হ্যাঁগা প্রভৃতি। নিমোনিকটির ব্যতিক্রম নেই বললেই চলে। অতএব, বিদেশি ও অতৎসম শব্দের বানানের প্রথম বর্ণে য-ফলা আবশ্যক হলে তা আ-কার-সহ দেবেন। বিদেশি এবং অতৎসম শব্দের বানানের প্রথমে য-ফলা সর্বদা আ-কার নিয়ে বসে। যেমন: অ্যাডমিন, অ্যাকাউন্ট, চ্যালা, চ্যাপটা, জ্যাঠা, ড্যাশ, ঢ্যাঁড়শ, ব্যাংক, ট্যাংক, ধ্যাৎ, ত্যাড়া, ত্যাঁদড়ামি, ত্যাঁদড়, ন্যাকড়া, ন্যাড়া, ন্যাতানো, ন্যাকামি, প্যাক, ফ্যাক্স, ফ্যাশন, ফ্যাঁকড়া, ফ্যাকাশে, ফ্যাসিবাদ, ভ্যাবাচ্যাকা, ভ্যান, ব্যাট, ব্যাটা, ব্যানার, ব্যান্ডসংগীত, ম্যাগাজিন, ম্যাচ, ম্যানেজার, ম্যালেরিয়া, ম্যাক্সি, র‌্যাক, র‌্যালি, ল্যাংড়া, ল্যাজ, ল্যাপটপ, ল্যান্ড, ল্যাবরেটরি, শ্যালক, শ্যাম্পু, স্যানাটোরিয়াম, স্যান্ডউইচ, স্যাকরা, হ্যান্ডবিল, হ্যাজাক, হ্যাংলামি — ।
সূত্র: ব্যবহারিক প্রমিত বাংলা বানান সমগ্র, ড. মোহাম্মদ আমীন, পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স লি.

Leave a Comment

You cannot copy content of this page

poodleköpek ilanlarıankara gülüş tasarımıantika alanlarPlak alanlarantika eşya alanlarAntika mobilya alanlarAntika alan yerlerfree cheatsvozol 12000valorant macrovalorant color aimbotvalorant triggerbotvalorant spoofertuzla evden eve nakliyatgebze evden eve nakliyatniğde evden eve nakliyataşk büyüsüeskişehir emlakEtimesgut evden eve nakliyatEşya Depolama
Casibomataşehir escortjojobetfixbetmatadorbetjojobetMeritkingholiganbet