লিলুয়া বাতাস বনাম লু: উড়িয়ে ওড়না লু হাওয়ায়

ড. মোহাম্মদ আমীন

লিলুয়া বাতাস বনাম লু: উড়িয়ে ওড়না লু হাওয়ায়

সংযোগ: https://draminbd.com/লিলুয়া-বাতাস-বনাম-লু-উড়ি/

Dr.AMIN
ড. মোহাম্মদ আমীন

“লিলুয়া বাতাস— এখানে লিলুয়া অর্থটা কী?”
লিলুয়া হলো লীলা শব্দের শাব্দিক বংশধর। লীলা থেকে প্রথমে এসেছে লীলায়িত ও লীলায়িতা। অতঃপর এদের বংশ থেকে জন্ম নিয়েছে লিলুয়া ।  তৎসম লীলায়িত (√লীলায়্‌+ত) অর্থ মনোহর ভঙ্গিযুক্ত। সুতরাং, লিলুয়া বাতাস মানে লীলায়িত বাতাস; মনোরম হাওয়া; মুগ্ধকর বাতাস; নির্মল ও সুন্দর বাতাস; মধুর চঞ্চলতায় পূর্ণ বাতাস; আউলা বাতাস; যে বাতাসে বসন এলোমেলো হয়ে যায়; মৃদুমন্দ বাতাস; এমন বাতাস যে বাতাস মনে আনন্দের শিহরন দেয়, উচ্ছ্বাস জাগায় শরীরে, চঞ্চল করে দেয় প্রাণ, আউলা করে দেয় মন আর বসন। লিলুয়া চৈত্র মাসের দুপুরে আকস্মিক আবেগে  ঝিরঝির করে বয়ে যায়। যার নির্মল পরশ শরীরে প্রশান্তি এনে দেয়, রমণীর হালকা শাড়ির নরম আঁচল পলকে চঞ্চল হয়ে পড়ে নাড়ির টানের মতো অনুলোম মমতায়
“লিলুয়া বাতাসে আকুল আবেশে আঁচল তোমার নারী
চঞ্চল আবেগে কেঁপে কেঁপে উঠে মনটা আমার ভারি;
আহ! মরি আমি মরি। (রায়োহরণ, ড. মোহাম্মদ আমীন)
লীলাকান,  লাীলাক্ষেত্র, লাীলাখেলা,  লাীলাগতি, লাীলাচঞ্চল, লাীলাচ্ছলে, লাীলাবতী, লাীলাভূমি, লাীলাময়, লাীলায়িত, লাীলাসঙ্গিনী, লাীলাসহচরী, লীলাস্থল, লাীলাস্মিত, লীলোদ্যান প্রভৃতি শব্দের সঙ্গে লীলা আর লিলুয়ার সম্পর্ক ও কার্যকরণগত পরিক্রমা নিঃসন্দেহে নিবিড়। প্রতিটি শব্দে আছে লিলুয়ার মতো শিহরন, উচ্ছ্বাস, মনোহরত্ব, প্রমোদ, আনন্দ, মধুর চঞ্চলতাপূর্ণ আকর্ষণীয় অনুভূতি। এসব শব্দ প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে লিলুয়া শব্দের সঙ্গে নিবিড়ভাবে একই কার্যকরণে মন্দ্রিত।
জ্ঞানেন্দ্রমোহন দাসের বাঙ্গালা ভাষার অভিধান গ্রন্থে লিলুয়া শব্দটি পাওয়া যায় না। তবে তার স্ত্রীকে পাওয়া যায়। লিলুয়া শব্দের স্ত্রী লিলুয়ারীবাঙ্গালা ভাষার অভিধান মতে,  লিলুয়ারী হলো লিলুয়ার স্ত্রীবাচক পদ। লীলা থেকে উদ্ভূত লিলুয়ারী অর্থ— (বিশেষণে) ক্রীড়াশীল, উচ্ছ্বাসময়, প্রাণচঞ্চল, আউলা, এলেমেলো, বিরামহীন প্রভৃতি।  মৈমনসিং-গীতিকায় শব্দটির ব্যবহার আছে আউলা বা এলোমেলো অর্থে।  সুতরাং, লিলুয়া বাতাস মানে আউলা বাতাস  যে বাতাসে পরিধেয় বসন এলোমেলো হয়ে যায়। যে বাতাসে রমণীর রমণীয় শরীর ঢেকে-রাখা হালকা শাড়ি পলকে পলকে বকের পালকের মতো নৃত্য করে; উড়ে যেতে চায় অঙ্গ ছেড়ে ওই সুদূরে; দূর বিধুরে মোহনীয় মমতায় তবু যেতে পারে না, আটকে থাকে।
বাংলা একাডেমি আধুনিক বাংলা অভিধানমতে, লু হিন্দি শব্দ। অর্থ (বিশেষ্যে)— গ্রীষ্মকালে মরু অঞ্চলে প্রবাহিত তপ্ত বাযু। অভিধানে লু-এর অর্থ যাই থাক,  কবি  আর কবিতায় লু শব্দের অর্থের সঙ্গে লিলুয়ার মিল রয়েছে। কবির চোখের  লু হাওয়ার সঙ্গে লিলুয়ার গভীর সম্পর্ক  দেখা যায়। নজরুলের গানে দেখুন লু হাওয়ার আনন্দ তাণ্ডব কেমন মনোহর
“মোমের পুতুল মমীর দেশের মেয়ে নেচে যায়
বিহ্বল চঞ্চল পায়
উড়িয়ে ওড়না লু হাওয়ায়
পরী নটিনী নেচে যায়।”
—————————————–
error: Content is protected !!