লোর এবং বিসিএস বাংলা: বিসিএস পরীক্ষার প্রশ্নপত্র থেকে উত্তর

 

ড. মোহাম্মদ আমীন

লোর এবং বিসিএস বাংলা: বিসিএস পরীক্ষার প্রশ্নপত্র থেকে উত্তর

লোর শব্দটি গানে-কবিতায় বহুল ব্যবহৃত একটি তুলতুলে কোমল কমল শব্দ। বড়ো বড়ো কবিগণের বড়ো প্রিয়। শুনলে মনে হবে আরবি বা ফারসি। তা নয়, লোর একদম দেশি শব্দ। বাক্যে বিশেষ্য হিসেবে ব্যবহৃত লোর অর্থ চোখের জল, অশ্রু।
মোহিনী চৌধুরী মোহনীয় লাস্যে কাবেরী মমতায় লিখেছেন:
“পথ ছেড়ে দাও, নয় সাথে চলো,
মুছে নাও আঁখি-লোর।
খুলে দাও প্রিয়া, খুলে দাও বাহুডোর ॥”
বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর লিখেছেন মায়ার খেলা নৃত্যনাট্যে:
“কেহ সচেতন, কেহ অচেতন,
কাহারো নয়নে হাসির কিরণ, কাহারো নয়নে লোর
আমার চোখে শুধু ঘুমঘোর।”
রবীন্দ্রনাথ লোর নিয়ে লিখতে পারেন, বিদ্রোহী নজরুল বাদ যাবেন কেন? তিনি লিখেছেন চৈতী হাওয়া কবিতায় শিহরন-মুগ্ধ কথায়:
“কমল-কাঁটার ঘা লেগেছে মর্মমূলে মোর!
বক্ষে আমার দুলে আঁখির শতনরি-হার লোর!”
[শতনরি অর্থ শত লহরযুক্ত।]

বিসিএস বাংলা: বিসিএস পরীক্ষার প্রশ্নপত্র থেকে/১

প্রথমটি অশুদ্ধ, দ্বিতীয়টি শুদ্ধ
অগস্ত্য যাত্রা> অগস্ত্যযাত্রা
অগনিত> অগণিত
অগণতি>অগনতি
অপারাহ্ন> অপরাহ্ণ
অন্তর্ভূক্ত>অন্তর্ভুক্ত
ইতিপূর্বে>ইতঃপূর্বে
উপযোগীতা> উপযোগিতা
উপরোক্ত>উপর্যুক্ত/ উপরিউক্ত
ঐক্যতান>ঐকতান কিন্তু ঐকমত্য
কল্যান >কল্যাণ
গীতাঞ্জলী>গীতাঞ্জলি
জীবীকা>জীবিকা
দূরাবস্থা>দুরবস্থা (দুর+অবস্থা)।
পিপিলিকা>পিপীলিকা
প্রতিযোগীতা> প্রতিযোগিতা, কিন্তু প্রতিযোগী।
প্রাতঃরাশ> প্রাতরাশ।
ব্যপ্ত> ব্যাপ্ত (বি+আপ্ত)
মুখস্ত>মুখস্থ
মনোকষ্ট> মনঃকষ্ট
মুহুর্ত> মুহূর্ত
শিরচ্ছেদ> শিরশ্ছেদ
সহযোগীতা> সহযোগিতা, কিন্তু সহযোগী।
স্বরস্বতী> সরস্বতী
সংস্কৃতিক> সাংস্কৃতিক
————————————————————————-

শালাশালা মানে শ্বশুরবাড়ি: অনামিকা

কিছু পরিবর্তিত বানান: কিছু জানা কিছু অজানা

লোর এবং বিসিএস বাংলা: বিসিএস পরীক্ষার প্রশ্নপত্র থেকে উত্তর

All Link : শুবাচে প্রকাশিতগুরুত্বপূর্ণ লেখা

All Links/1

 

সূত্র: ব্যাবহারিক প্রমিত বাংলা বানান সমগ্র, ড. মোহাম্মদ আমীন, পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স লি.

লালা

লালা অর্থ মুখ থেকে নিঃসৃত জল, মুখজাত রস প্রভৃতি। লালা কিন্তু থুথু নয়। যেটি মুখ থেকে অনিচ্ছাসত্ত্বেও ঝরে সেটি লালা। শিশুদের মধ্যে এমন প্রবণতা বেশি দেখা যায়। লালা সংস্কৃত শব্দ। এর মূল অর্থ: যা খাদ্য পেতে ইচ্ছা করে। লালা কি তাহলে খাদ্য পেতে ইচ্ছে করে? না, কিন্তু যার লালা ঝরে তার নিশ্চয় খাদ্য পেতে ইচ্ছে করে। লালা তার এ ইচ্ছেকে প্রকাশ করে। প্রকাশ্য লালা ছাড়াও আর একপ্রকার লালা আছে। এটি লোভের লালা। এমন লালা যাদের ঝরে তাদের বলে ‘লালায়িত’। তেঁতুল বা টকজাতীয় কোনো কিছুর গন্ধ নাকে এলে জিভে লালা আসে, হয়তো ঝরে না কিন্তু আসে। এ আসাটাই খাওয়ার ইচ্ছা। নতুন ও উপাদেয় কোনো খাদ্য দেখলেও মুখে লালা আসে।

Language
error: Content is protected !!