শিশু ও বাচ্চা

ড. মোহাম্মদ আমীন

বাংলা একাডেমি আধুনিক বাংলা অভিধানমতে, ‘বৎস’ থেকে উদ্ভূত তদ্ভব ‘বাচ্চা’ শব্দের অর্থ বিশেষ্যে– শিশু, সন্তান, শাবক, ছানা এবং বিশেষণে অপ্রাপ্ত বয়স্ক।সংস্কৃত (√শো+উ) শিশু শব্দের অর্থ– বিশেষ্যে নবজাতক, অল্পবয়স্ক বালক-বালিকা, শাবক প্রভৃতি। অভিধান অনুসারে ‘বাচ্চা’ ও ‘শিশু’ কিছু

পাঞ্রেরী পাবলিকেশন্স লি.

কিছু ক্ষেত্রে সমার্থক হলেও প্রায়োগিক অর্থ স্পষ্টতই ভিন্ন। ‘শিশু’ শব্দে পরিষ্কারভাবে বলে দেওয়া হয়েছে, শব্দটির মুখ্য অর্থ অল্পবয়স্ক বালক-বালিকা। যেমন :
“ঘুমিয়ে আছে শিশুর পিতা সব শিশুরই অন্তরে।”
“বন্যেরা বনে সুন্দর শিশুরা মাতৃক্রোড়ে”

মনুষ্য শিশুর জন্য শোভনীয় হচ্ছে ‘শিশু’। তবে বাক্যভেদে মনুষ্য শিশুর ক্ষেত্রেও ‘বাচ্চা’ বলতে শোনা যায়। তবে, মনুষ্য সন্তানের শোভনীয়তা শিশুতে, বাচ্চাতে নয়। শুয়োরের বাচ্চা, গরুর বাচ্চা প্রভৃতি বলা হয়, কিন্তু ‘মানুষের বাচ্চা’ বলা গালি না হলেও গালির মতো শোনায়। মানুষের সন্তানকে কথ্য ভাষায় অনেকে ‘বাচ্চা’ বলে থাকেন।তবে এটিও শ্রুতিকটু । পশু ও মানুষের মধ্যে প্রভেদ বোঝাতে পশুর ক্ষেত্রে ‘বাচ্চা’ আর মানুষের ক্ষেত্রে ‘শিশু’ ব্যবহার করা সমীচীন। জাতিসংঘ শিশু সনদ অনুসারে ১৮ বছর বয়স পর্যন্ত সবাই শিশু, কিন্তু পশুর জন্য এমন সংজ্ঞার্থ নেই। এটি বিবেচনা করলেও শিশু ও বাচ্চার প্রভেদ স্পষ্ট। অতএব সাধারণ ক্ষেত্রে প্রমিত বাংলায় মানুষের সন্তান বোঝাতে ‘শিশু’ই বিধেয়।

অনেকে বলেন, মানুষের ক্ষেত্রে ‘বাচ্চা’ বলা গালি হবে কেন? গালি মনে না-হলেও শোভনীয় মনে করার কোনো হেতু নেই। বাংলায় দাপ্তরিক, সাহিত্যিক, কাব্যিক, পাঠিক – প্রায় সব লেখাতে শিশু ব্যবহার করা হয়, বাচ্চা নয়। যেমন : শিশুসাহিত্যিক, শিশুপাঠ, শিশুতোষ, শিশুসুলভ, শিশুহৃদয়, শিশুপালন,

পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স লি.

শিশু মন্ত্রণালয় প্রভৃতি লেখা হয়। অনেকে বলেন, বাচ্চাকাচ্চা’ ডাকা যায়। মনে রাখতে হবে, এটি কিন্তু আলাদা বাংলা শব্দ। এর সঙ্গে ‘শিশু’ বা ‘বাচ্চা’ শব্দের সম্পর্ক না-টানা উত্তম। শব্দটির অর্থ ছোটো ছোটো ছেলেমেয়ে। অনেকে বলেন, বাচ্চা ইত্যাদি আদর করে ডাকা হয়। আদর করে ডাকা হলেও এটি কথ্য, অধিকন্তু, আদুরে ডাক সবসময় শোভনীয় হয় না। যেমন : অনেকে সন্তানদের আদর করে বলেন, আমাদের শুয়োরটা/ বলদটা, বৃষটা গেল কোথায়? অনেকে বলেন, “আমার বউয়ের বাচ্চা’।

এই প্রসঙ্গে শুবাচে জনাব ফাহিম রহমানের দেওয়া ‘শিশু-বাচ্চা’ প্রয়োগ-বিধিটা সহায়ক হতে পারে :
১.ইতর-ভদ্র বুঝাতে-মানব সন্তান এর ক্ষেত্রে সাধারণত শিশু এবং ইতর প্রাণীর ক্ষেত্রে বাচ্চা লেখা শোভনীয়।
২.সাধারণ অর্থে-বাচ্চারা বা শিশুরা খেলছে ব্যবহার হয়। যেমন> হরিণের/মানুষের বাচ্চারা খেলছে ও হরিণ/মানব শিশুরা খেলছে।
৩.কথ্য রীতি অনুসারে-তুমি মানুষের/জানোয়ারের বাচ্চা,শিশু/বাচ্চা জন্মাল।
৪.গাম্ভীর্য বুঝাতে-মানব শিশু,মনুষ্য শিশু,শিশু কাব্য,শিশু হাড়(তরুণাস্থি),বাচ্চা দরবেশ,বাচ্চা হাফেজ।
৫.নিম্ন অর্থে-তুই মানুষের বাচ্চা না।
৬.প্রাণী-অপ্রাণী বুঝাতে-শিশু তরু,শিশু বৃক্ষ।
৭.ক্লীব বুঝাতে-শিশু মেলা,শিশুতোষ সাহিত্য,শিশু শিক্ষালয়,শিশু সদন,শিশু আশ্রম।
৮.নেতিবাচক বুঝাতে-বাচ্চাদের মতো কেন করো।
৯.কোমলতা বুঝাতে-শিশু সুলভ আচরণ।
১০.অহেতুক অর্থে-বাচ্চামি করছো।
১১.চঞ্চলতা বুঝাতে-শিশু সুলভ ভঙ্গী।
১২.মানুষের মুখবিবরের কমনীয়তা বুঝাতে-শিশু শিশু ভাব,বাচ্চা বাচ্চা ভাব,শিশু কায়া।
১৩.কণ্ঠের নম্রতায়-বাচ্চাদের মতো কণ্ঠ,শিশুর মতো স্বর।
১৪.বিহ্বলতায়-শিশু/বাচ্চা র মতো কান্নায় ভেঙ্গে পড়লো।
১৫.সন্তান অর্থে-তুমি আমার বাচ্চা আমি তোমার মা।
১৬.বয়স্কের বিপরীত অর্থে-এতো শিশু/বাচ্চা নয় বুড়ো।
১৭.চটুল অর্থে বাচ্চা ভূত,বাচ্চা পাগল.বাচ্চা মাস্তান।
১৮.গণহারে বুঝাতে-বাচ্চা বুড়া সকলে।
১৯.ব্যবহার্য বস্তুতে-চৌবাচ্চা।
২০.ঈষৎ কম বয়স্ক বুঝাতে-বাচ্চা বধূ।
২১.উন্নতির ক্ষেত্রে-শিশুর বিকাশ।
২২.আদুরে অর্থে-বাচ্চাটার নামটি কি এখনো বাবুই আছে।
২৩.অলিক অর্থে-শিশুর কল্পনা। ইত্যাদি


All Link

বিসিএস প্রিলি থেকে ভাইভা কৃতকার্য কৌশল

ড. মোহাম্মদ আমীনের লেখা বইয়ের তালিকা

বাংলা সাহিত্যবিষয়ক লিংক

বাংলাদেশ ও বাংলাদেশবিষয়ক সকল গুরুত্বপূর্ণ সাধারণজ্ঞান লিংক

বাংলা বানান কোথায় কী লিখবেন এবং কেন লিখবেন/১

বাংলা বানান কোথায় কী লিখবেন এবং কেন লিখবেন/২

বাংলা বানান কোথায় কী লিখবেন এবং কেন লিখবেন /৩

কীভাবে হলো দেশের নাম

ইউরোপ মহাদেশ : ইতিহাস ও নামকরণ লিংক

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/১

দৈনন্দিন বিজ্ঞান লিংক

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/২

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/৩

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/৪

কীভাবে হলো দেশের নাম

সাধারণ জ্ঞান সমগ্র

সাধারণ জ্ঞান সমগ্র/১

সাধারণ জ্ঞান সমগ্র/২

বাংলাদেশের তারিখ

error: Content is protected !!