Warning: Constant DISALLOW_FILE_MODS already defined in /home/draminb1/public_html/wp-config.php on line 102

Warning: Constant DISALLOW_FILE_EDIT already defined in /home/draminb1/public_html/wp-config.php on line 103
শুদ্ধ বানান চর্চা প্রমিত বানান বিধি যা আছে এখানে – Dr. Mohammed Amin

শুদ্ধ বানান চর্চা প্রমিত বানান বিধি যা আছে এখানে

ড. বি সি দাশ, যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়, কলকাতা ঢাকা
শুবাচগোষ্ঠীর উপদেষ্টা এবং বৈয়করণগণ দীর্ঘ তিন বছর যাবৎ শিক্ষিত বাংলাভাষী শুবাচিগণের মাতৃভাষাজ্ঞান পর্যবেক্ষণ করে বাংলা বানানে তাঁদের কোথায় ভুল হয় এবং কেন হয় আর তা কীভাবে দূরীভূত করা যায় ইত্যাদি পর্যবেক্ষণ করেছেন। এই পর্যবেক্ষণের আলোকে বাংলাভাষীর ভুলগুলো সংশোধনের লক্ষ্যে গ্রন্থটি রচিত। অধ্যাপক হায়াৎ মামুদ ও অধ্যাপক আবুল কাসেম ফজলুল হকের তত্ত্বাবধানে অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আমীন স্যারের লেখা ১১২ পৃষ্ঠার বইটির মূল্য ধরা হয়েছে ২৫০ টাকা। শুবাচিদের জন্য ৩০% কমিশন, তখন মূল্য হবে ১৭৫ টাকা। সংগ্রহ করার জন্য যোগাযোগ করতে পারেন : অনুভব, 01980-105577। যোগাযোগ করলে ডাকযোগে বইটি প্রেরণ করা হবে।

বইটিতে যা পাবেন :

প্রথম অধ্যায়
প্রমিত বাংলা বানানবিধি
‘ও’ বর্ণের ফাঁক-অফাঁক :
ক্রিয়াপদে ‘ও-কার’
‘দু’ এবং ‘দূ’
‘আস্ত-ত’ ও খ–ত
বিশেষণ পদ লেখার নিয়ম
বিদেশি শব্দে দন্ত্য-স
পদের শেষে ‘-জীবী’ ও ‘-জীব’ শব্দের বানান :
বহুবচন-বাচক ‘-বলি’
পূর্ণ ও পুন
‘স্ত’ ও ‘স্থ’
‘কে’ এর ফাঁক-অফাঁক
ক্রিয়াপদে ‘না’ অব্যয়
বিদেশি শব্দে ঈ ণ ছ ষ
অ্যা-এ
ইংরেজি বর্ণ ঝ-এর প্রতিবর্ণ
আরবি বর্ণের প্রতিবর্ণিকরণ
ণত্ববিধি
সমাসবদ্ধ পদে ফাঁক থাকবে না
হ্রস্ব ই-কার ও হ্রস্ব উ-কার ব্যবহার
বিদেশি শব্দে ‘দীর্ঘ ঈ-কার’ বর্জিত
বাংলা শব্দে হ্রস্ব ই-কার
ঙ ঞ ও বিসর্গ
ক্রিয়াপদে ও-কার
আলি ও অঞ্জলি
ভূত-অদ্ভুত
হীরা ও নীল
নাই নেই নি
ব্যঞ্জনবর্ণের দ্বিত্ব নিষিদ্ধ
ইন্-ভাগান্ত শব্দ ও সমাস
ভাষা ও জাতি-সমূহের বানান হ্রস্ব ই-কার
-কারী ও -কারি
বহুবচনবাচক পদ ও বানান পরিবর্তন
প্রত্যয়ান্ত হ্রস্ব ই-কার
ঈ ঈয় অনীয় প্রত্যয়ের প্রভাব
খ–ৎ ও স্বরচিহ্ন
ইক-প্রত্যয়ের প্রভাব
প্রশাসনিক না প্রাশাসনিক
আর্ষপ্রয়োগ
‘টি’ ‘টা’- কোনটি কখন
উনি এবং তিনি
বর্গীয়-ব অন্তঃস্থ ব
বিশেষ্য থেকে বিশেষণ
মত এবং মতো
-এর (possessive/genitive case)/ ব্যবহার
স স্ব, সার্থ স্বার্থ, সাক্ষর স্বাক্ষর
চলিত ভাষায় কোমলরূপ
শব্দের শেষে বিসর্গ বিধেয় নয়
তৃচ প্রত্যয়ান্ত তা-তৃ
তৃচপ্রত্যয়ের প্রভাব
অবিকৃত ও বিকৃত ‘এ’
ত্ব-প্রত্যয়যুক্ত শব্দের মধ্যাংশ :
প্রায় প্রধান বহুল বিশেষ
য-প্রত্যয়
তৎসম স্ত্রীবাচক শব্দ
ব্যক্তি বা পুরুষ প্রকাশে তৎসম শব্দে দীর্ঘ ঈ-কার
নির্দেশক পদের অবস্থান
বিশেষণ থেকে বিশেষ্য করার কৌশল
আ-কার লোপ-কাহিনি
হস্ চিহ্ন বর্জন
হস্ চিহ্ন দেওয়ার কারণ
লেখ লেখা লেখনী ও লেখসামগ্রী
কি বনাম কী
সংক্ষেপিত শব্দে ষষ্ঠী বিভক্তির (র/এর) ব্যবহার
শ্রীমান, আয়ুষ্মান্
সরণি ও স্মরণী স্বরনি
বান-মান
ঊ-কার যদি উ-কার হয়
অকারণ স্ত্রীলিঙ্গ
অতলস্পর্শ স্থানে অতলস্পর্শী
জীবন স্থানে জীবনী
বার্ষিক স্থানে বার্ষিকী
ম-ল স্থানে ম-লী
শতাব্দ স্থানে শতাব্দী
অনূদিত ভুল কিন্তু প্রচলিত প্রয়োগ
ক্রিয়াপদের সূচনায় উ এবং ও
উচ্চারণগত দীর্ঘস্বর
দ্বিতীয় অধ্যায়
‘ণত্ববিধান
তৃতীয় অধ্যায়
ষত্ববিধান
চতুর্থ অধ্যায়
চন্দ্রবিন্দু এবং তার ব্যবহার-কৌশল
পঞ্চম অধ্যায়
সমাস
ষষ্ঠ অধ্যায়
বহুবচন পদের ব্যবহার
সপ্তম অধ্যায়
অসাধু শব্দ
অষ্টম অধ্যায়
কয়েকটি পরিবর্তিত বানান
নবম অধ্যায়
ধাতু ও ধাতুরূপ
দশম অধ্যায়
ভুল এবং সংশোধন
একাদশ অধ্যায়
কী লিখবেন এবং কী লিখবেন না
দ্বাদশ অধ্যায়
একাধিক বানান শুদ্ধ হলে যেটি লিখবেন
ত্রয়োদশ অধ্যায়
দুষ্ট বানান
চতুর্দশ অধ্যায়
যতিচিহ্নের ব্যবহার
পরিশিষ্ট
বাংলা একাডেমি প্রমিত বাংলা বানানের নিয়ম