শুদ্ধ বানান চর্চা : হসন্ত বিধি

প্রমিত বাংলা বানান রীতি অনুযায়ী হসন্ত

ড. মোহাম্মদ আমীন

সংস্কৃত মূল শব্দের শেষে হসন্ত থাকলেও আধুনিক-প্রমিত বাংলা বানানে তা বর্জনীয়। যেমন: দিক্ নয় দিক; বিপদ্ নয় বিপদ। কিন্তু সমাসবদ্ধ শব্দের পূর্বপদে হসন্ত থাকলে সংস্কৃত সন্ধির নিয়ম বাংলা বানানেও কার্যকর হয় এবং বাংলা শব্দের বানানেও তখন হসন্ত দিতেহয়। যেমন: দিক্ + দর্শন = দিগ্ দর্শন, বাক্+দত্তা = বাগ্ দত্তা। আবার হসন্ত-চিহ্ন বর্জন যদি শব্দের উচ্চারণ এবং সে কারণে বাক্যের অর্থে সংশয় সৃষ্টি করে সেক্ষেত্রে হসন্ত প্রয়োগ করতে দেখা যায়।  যেমন: আহ্, বাহ্।তুচ্ছার্থে কর্, ধর্, মর্, বল্ ইত্যাদি।

হসন্তযুক্ত কয়েকটি শব্দের উদাহরণ

অকৃতোদ্‌বাহ (অবিবাহিত), অগ্ন্যুদ্‌গম, উদ্‌গতি, উদ্‌গত, উদ্‌গম, উদ্‌গাঢ়, উদ্‌গাতা, উদ্‌গার, উদ্‌গিরণ, উদ্‌গিরিত, উদ্‌গীত, উদ্‌গীতি, উদ্‌গীর্ণ, উদ্‌গ্রহণ, উদ্‌গ্রীব, উদ্‌ঘট্টন, উদ্‌ঘাটক, উদ্‌ঘাটিত, উদ্‌ঘুট্টি, উদ্‌যান, উদ্‌ধ্মান, উদ্‌বদ্ধ, উদ্‌বন্ধক, উদ্‌বন্ধন, উদ্‌বন্ধনরজ্জু, উদ্‌বমন, উদ্‌বর্ত, উদ্‌বর্তন, উদ্‌বর্ধন, উদ্‌বান্ত, উদ্‌বায়িতা, উদ্‌বায়ী, উদ্‌বায়ু, উদ্‌বাসন, উদ্‌বাস্তু, উদ্‌বাহ, উদ্‌বাহন, উদ্‌বাহিত, উদ্‌বাহী, উদ্‌বাহু, উদ্‌বিগ্ন, উদ্‌বিড়াল, উদ্‌বীক্ষণ, উদ্‌বুদ্ধ, উদ্‌বৃত্ত, উদ্‌বেগ, উদ্‌বেগজনক, উদ্‌বেগী, উদ্‌বেজক, উদ্‌বেজন, উদ্‌বেজিত, উদ্‌বেল, উদ্‌বেলিত, উদ্‌বোঢ়া, উদ্‌বোধ, উদ্‌বোধক, উদ্‌বোধন, উদ্‌বোধনী, উদ্‌ব্যক্ত, উদ্‌ব্যক্তি, উদ্‌ভ্রম, উদ্‌ভ্রান্ত, উদ্‌যাপক, উদ্‌যাপন, উদ্‌যাপিত, উদ্‌যোগ।

আরো জানার জন্য দেখতে পারেন:

বাংলা বানান কোথা কী লিখবেন  এবং কেন লিখবেন

শুদ্ধ বানান চর্চা শুবাচ লিংক

সাধারণ জ্ঞান সমগ্র

error: Content is protected !!