শেখ পরিবারের পত্তন

শেখ পরিবারের পত্তন
শেখ আউয়াল হযরত শেখ মহিউদ্দিন আবদুল কাদের জিলানীর বংশধর। শেখ আউয়ালের জ্যেষ্ঠ সন্তানের নাম শেখ জহির উদ্দিন। শেখ জহির উদ্দিনের পুত্র শেখ জান মোহাম্মদ ওরফে তেরকি শেখ। জান মোহাম্মদ ওরফে তেরকি শেখের পুত্র শেখ বোরহান উদ্দিন। তিনি ব্যবসায়ী ছিলেন। ব্যবসার কাজে শেখ বোরহান উদ্দিন প্রায়সময় গোপালগঞ্জে গিমাডাঙ্গায় যেতেন। সেখানে তিনি সৎ ব্যবসায়ী এবং আদর্শ মানুষ হিসেবে খ্যাত হয়ে ওঠেন। এ সূত্রে গিমাডাঙ্গা সংলগ্ন টুঙ্গীপাড়ার কাজি পরিবারের এক রমণীর সঙ্গে শেখ বোরহান উদ্দিন বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। এভাবেই টুঙ্গিপাড়ায় শেখ পরিবারের গোড়াপত্তন ঘটে। বিস্তারিত

শেখ বোরহান উদ্দিনের পরিবার

শেখ বোরহান উদ্দিনের ছিল তিন পুত্র সন্তান। তারা হলেন : শেখ ইকরাম বা শেখ আকরাম, শেখ তাজ মোহাম্মদ ও শেখ কুদরতুল্লা ওরফে কদু শেখ। শেখ ইকরামের দুই ছেলে যথাক্রমে শেখ জাকির হোসেন ও শেখ ওয়াসিম উদ্দিন। শেখ জাকিরের তিন ছেলে যথাক্রমে শেখ আব্দুল মজিদ, শেখ আব্দুল রাসেল ও শেখ আবদুল হামিদ। শেখ আবদুল হামিদের তিন ছেলে এবং তারা হলেন শেখ লুৎফর রহমান, শেখ শফিউর রহমান ও শেখ হাবিবুর রহমান।

শেখ মুজিবের পিতা, পিতামহ এবং প্রপিতামহ
শেখ লুৎফর রহমান বাঙালি জাতির জনক এবং হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পিতা, শেখ আবদুল হামিদ বঙ্গবন্ধুর পিতামহ এবং শেখ জাকির বঙ্গবন্ধুর প্রপিতামহ এবং প্রপ্রপিতামহ হচ্ছে শেখ ইকরাম।

বঙ্গবন্ধুর ভাষ্যে তার বর্তমান বংশধর
বঙ্গবন্ধু বলেছেন, ‘শেখ বোরহান উদ্দিনের পরে তিন-চার পুরুষের কোনো ইতিহাস পাওয়া যায় না। তবে শেখ বোরহান উদ্দিনের ছেলের ছেলে অথবা দুই-এক পুরুষ পরে দুই ভাইয়ের ইতিহাস পাওয়া যায়। এদের সম্বন্ধে অনেক গল্প আজও শোনা যায়। এক ভাইয়ের নাম শেখ কুদরত উল্লাহ ওরফে কদু শেখ, আর এক ভাইয়ের নাম শেখ একরাম উল্লাহ বা শেখ ইকরাম। আমরা এখন যারা আছি তারা এই দুই ভাইয়ের বংশধর।’

error: Content is protected !!