সংক্ষেপিত শব্দে ষষ্ঠী বিভক্তির (র/এর) ব্যবহার

ড. মোহাম্মদ আমীন

সংক্ষেপিত শব্দে ষষ্ঠী বিভক্তির (র/এর) ব্যবহার নিয়ে বিভিন্ন জটিলতা দেখা যায়। জটিলতার কারণ – প্রমিত বানান রীতিতে সংক্ষেপিত শব্দে ‘র/এর’ ব্যবহারের কোন সুনির্দিষ্ট নিয়ম নেই। একই অর্থে ডিসির, ডিসি-এর, ডিসি’র, ডিসি‘র প্রভৃতি লেখা হচ্ছে। যা ভাষায় জটিলতা সৃষ্টি ছাড়াও বাংলাভাষা শিখতে আগ্রহী বিদেশি শিক্ষার্থীদের সমস্যায় নিপতিত করে। এমন জটিলতা এড়ানোর জন্য নিচের তিনটি নিয়ম অনুসরণ করা যায়:

১. সংক্ষেপিত শব্দের অন্তে যদি ইংরেজি F H L M N R S X Z ইত্যাদি বর্ণ থাকে এবং বর্ণটি যদি পরিপূর্ণরূপে লেখা হয় তবে শব্দটিতে হাইফেনযুক্ত ‘এর’ ব্যবহার করুন।
যেমন: আইএমএফ + এর = আইএমএফ- এর (UNICEF এর ক্ষেত্রে হবে ইউনিসেফের; কারণ এখানে সংক্ষেপিত শব্দটি বাংলায় পরিপূর্ণরূপে লেখা হয় না), তাস+এর = তাস-এর (TASS), বেনেলাক্স + এর = বেনেলাক্স-এর (BENELUX) ইত্যাদি।

২. সংক্ষেপিত শব্দটির অন্ত্য উচ্চারণ যদি ‘হস্’ বা ‘অ-কারন্ত’ হয় তাহলে শব্দটির অন্ত্য বর্ণের সঙ্গে ‘এ-কার’ যুক্ত করুন এবং তারপর ‘র’ বসান।
যেমন: ইউনিসেফ +এর = ইউনিসেফের, বার্ড+ এর = বার্ডের (BARD), এইডস +এর = এইডসের (AIDS), এসকাপ +এর = এসকাপের (ESCAP) ইত্যাদি।

৩. অন্যান্য সংক্ষেপিত শব্দের ক্ষেত্রে শব্দের অন্তে শুধু ‘র’ দিন।
যেমন: ডিসি+ এর = ডিসির (DC), বিবিসি+ এর = বিবিসির(BBC), বিআরটিসি+ এর = বিআরটিসির (BRTC), এসপি+ এর = এসপির (SP), হু+এ = হুর (WHO) ইত্যাদি।

৪. তবে কোন ক্ষেত্রে উর্ধ্ব-কমা ব্যবহার করা বিধেয় নয়। কারণ প্রমিত বানান রীতি এর ব্যবহারকে নিরুৎসাহিত করে।

error: Content is protected !!