সরকারি কাজে প্রমিত বাংলা ব্যবহারের নিয়ম (ষষ্ঠ পর্ব)

৬১. যেহেতু/যেইহেতু, সেহেতু/সেইহেতু

‘যেহেতু’ এবং ‘সেইহেতু’-র মধ্যে বস্তুত কোনও পার্থক্য নেই। অনেকে মনে করেন, পরে ‘সেইহেতু’ থাকলে তার সঙ্গে সামঞ্জস্য রাখতে ‘যেইহেতু’ লিখতে হবে। এটি ভুল ধারণা। ‘যেহেতু…সেহেতু’/‘যেহেতু…সেইহেতু’ (‘সেইহেতু’তে অর্থগত জোর পড়লে) সাধারণ ব্যবহার এবং আনুষ্ঠানিক প্রমিত ব্যবহার―উভয়ক্ষেত্রেই যথার্থ।

৬২. , ,

বাংলা বানানে ঢ়-এর ব্যবহার খুবই সীমিত। অল্পকিছু শব্দে এর ব্যবহার আছে। যেমন―গাঢ়, আষাঢ়, গূঢ়, রিগূঢ়, মূঢ়, বিমূঢ়, অনূঢ়। ড়-এর ব্যবহার শব্দের শুরুতে নেই। র ও ড়-এর ব্যবহার কোনও সূত্র বা নিয়মের অধীন নয়; সংশ্লিষ্ট শব্দগুলো মনে রাখাই বানানে এই দুটি বর্ণের ব্যবহার মনে রাখার একমাত্র উপায়।

৬৩. রেফ

রেফ আসলে ‘র্’-এর একটি সংক্ষিপ্ত রূপ। অন্য সংক্ষিপ্ত রূপটি হলো র-ফলা । যে-ধ্বনির আগে রেফ (বা ‘র্’) উচ্চারিত হয় সেই ধ্বনিটির (অর্থাৎ বর্ণটির) ওপরে রেফ বসে। যেমন― ধ + র্ + ম = ধর্ম।

৬৪. লক্ষ, লক্ষ্য

‘লক্ষ করা’ একটি ক্রিয়াপদ। এর অর্থ ‘খেয়াল করা’, ‘দেখা’ ইত্যাদি। এতে য-ফলা নেই। যেমন―কদিন ধরেই লক্ষ করছি  তোমার মনটা খুব খারাপ।

‘লক্ষ’ শব্দের অন্য অর্থ একশ হাজার।

অন্যদিকে, ‘লক্ষ্য’ একটি বিশেষ্যপদ। এর অর্থ ‘উদ্দেশ্য’, ‘নিশানা’। এতে য-ফলা আছে। যেমন―‘জীবনের লক্ষ্য হওয়া উচিত মানবতার জন্য কাজ করা।’ ‘গাছ লক্ষ্য করে ঢিল ছুড়লাম, ফল পড়ল না।’

৬৫. লোপচিহ্ন (’)

লোপচিহ্নের ব্যবহার যথাসম্ভব কম হবে। সংখ্যাবাচক শব্দের সংক্ষিপ্ত রূপের পরে লোপচিহ্ন ব্যবহারের প্রয়োজন নেই। যেমন―নটা বাজে। ছশ টাকা দাও।

কখনও কখনও অর্থ স্পষ্ট করার প্রয়োজনে লোপচিহ্ন ব্যবহার করা যেতে পারে। যেমন― মা’র হাতের রান্না সবসময় সুস্বাদু হয়।

৬৬. শব্দশেষে’, ‘

অধিকন্তু অর্থে শব্দশেষের ‘ও’ প্রত্যয় ও-কার ( ো ) হিসেবে নয়, ‘-ও’ হিসেবেই যুক্ত হবে। যেমন―কোনও (‘কোনো’ নয়), আরও (‘আরো’ নয়), আজও (‘আজো’ নয়), এবারও (‘এবারো’ নয়)। নিশ্চয়তা অর্থে ‘ই’-ও অনুরূপভাবে ব্যবহৃত হবে। যেমন―আজিই (‘আজি’ নয়), তোমারই (‘তোমারি’ নয়) ইত্যাদি। তবে বাংলা একাডেমি আধুনিক বাংলা অভিধানমতে, কোনো, আরো এবারো প্রমিত হিসেবে ব্যবহৃত  হয়। সুতরাং এক্ষেত্রে আলোচ্য পুস্তকের এই বিধি অনুসরণ না করলেও চলে।

৬৭. শব্দসংক্ষেপ

‘মোঃ’ (‘মোহাম্মদ’-এর সংক্ষিপ্ত রূপ) রূপটি ব্যক্তি নামের সঙ্গে সম্পর্কিত। তাই এটি এবং অনুরূপ শব্দগুলো বিসর্গযোগে লেখা হয়। অন্যান্য সংক্ষিপ্তকরণের ক্ষেত্রে মিতব্যয়িতা (economy) অনুসরণ করা সমীচীন। যেমন―‘ডক্টর’-এর সংক্ষিপ্ত রূপ ড. (‘ডঃ’ নয়), হিসাবিজ্ঞান-এর সংক্ষিপ্ত রূপ ‘হিবি’ বা ‘হি.বি.’ (‘হিঃ বিঃ’ নয়) ইত্যাদি।

৬৮. ষষ্ঠ/৬ষ্ঠ ইত্যাদি

তারিখবাচক শব্দ সংখ্যা ও কথার সহযোগে পূর্ণরূপে লেখা হবে: তারিখ নির্দেশক সংখ্যার সঙ্গে ‘ই’ ব্যবহার অপ্রয়োজনীয়। যেমন―৭ মে ২০১৬, ৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ ইত্যাদি। [তবে বাংলা একাডেমি আধুনিক বাংলা অভিধানমতে, পুস্তিকার এ বর্ণনা সম্পূর্ণ ভুল। বাংলা একাডেমিমতে, তারিখ নির্দেশক সংখ্যার সঙ্গে ‘ই’ ব্যবহার প্রয়োজনীয়। যেমন―৭ই মে ২০১৬, ৯ই অগ্রহায়ণ ১৪২৩ ইত্যাদিঅতএব, এই পুস্তিকার বর্ণিত নির্দেশ  প্রমিত নয়, যদিও প্রচলিত।] পূরণবাচক শব্দ কথায় বা সাংখ্যাসহযোগে লেখা যেতে পারে।যেমন―দশম, ১০ম। সংস্কৃত ভাষার সকল পূরণবাচক শব্দ বাংলায় ব্যবহার বাস্তবসম্মত নয়। ভাষাব্যবহারে জনগ্রহণযোগ্যতা কিংবা জনব্যবহারের গুরুত্ব অত্যন্ত বেশি। বাংলায় ‘বিংশতিতম’-এর স্থানে ‘২০তম’, ‘একত্রিংশত্তম’-এর স্থানে ‘৩১তম’ ইত্যাদি ব্যবহার স্বচ্ছন্দ ও গৃহীত। দাপ্তরিক ক্ষেত্রে এই রূপগুলোর ব্যবহার চলতে পারে।

৬৯. শ, ষ, স

বাংলা বানানে ষ-এর স্থান ষত্ব বিধান দ্বারা সুনির্দিষ্ট (ষত্ব বিধান দ্রষ্টব্য)। এই নিয়ম অপরিবর্তিত থাকবে। বিদেশি বা বিদেশি উৎসজাত শব্দে ষ-এর ব্যবহার নেই। এক্ষেত্রে স ও শ-এর ব্যবহার সংশ্লিষ্ট বিদেশি শব্দের উচ্চারণ অনুযায়ী হবে।

উচ্চারণ ইংরেজি s-এর মতো হলে স ব্যবহৃত হবে। যেমন― স্টোর (store), সিট (seat)G

উচ্চারণ ইংরেজি sh-এর মতো হলে শ ব্যবহৃত হবে। যেমন: শার্ট (shirt), শিট (sheet), স্টেশন (station)।

৭০ -সংক্রান্ত

‘সংক্রান্ত’ সবসময় যুক্তভাবে ব্যবহৃত হবে। যেমন― এতৎসংক্রান্ত, বিবাহসংক্রান্ত।

৭১. সংখ্যাবাচক শব্দ

সংখ্যাবাচক শব্দগুলো বৈশিষ্ট্যের বিচারে বিশেষণস্থানীয়।তাই এগুলোর ব্যবহার বিশেষণ শব্দের ব্যবহারের অনুরূপ হবে।

৭২. -সংশ্লিষ্ট, সংশ্লিষ্ট

‘সংশ্লিষ্ট’ যুক্ত (সমাসবদ্ধ) ও মুক্ত উভয় রূপেই ব্যবহৃত হতে পারে। যেমন― বিয়ষসংশ্লিষ্ট কথাই কেবল আলোচনার উপযুক্ত। অনুষ্ঠানের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সকলেই ধন্যবাদের যোগ্য।

সূত্র: সরকারি কাজে প্রমিত বাংলা ব্যবহারের নিয়ম; প্রথম প্রকাশ ফাল্গুন ১৪২৩, মার্চ ২০০৭; জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

উৎস: ড. মোহাম্মদ আমীন, ব্যাবহারিক প্রমিত বাংলা বানান সমগ্র, পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স লি.

সরকারি কাজে প্রমিত বাংলা ব্যবহারের নিয়ম/১— ২

সরকারি কাজে প্রমিত বাংলা ব্যবহারের নিয়ম/৩

সরকারি কাজে প্রমিত বাংলা ব্যবহারের নিয়ম/৪

সরকারি কাজে প্রমিত বাংলা ব্যবহারের নিয়ম/৭—১০

সরকারি কাজে প্রমিত বাংলা ব্যবহারের নিয়ম (১৩—২৪)

সরকারি কাজে প্রমিত বাংলা ব্যবহারের নিয়ম (২৫―৩৬)

সরকারি কাজে প্রমিত বাংলা ব্যবহারের নিয়ম (৩৭৪৮)

সরকারি কাজে প্রমিত বাংলা ব্যবহারের নিয়ম (৪৯―৬০)

সরকারি কাজে প্রমিত বাংলা ব্যবহারের নিয়ম (৬১—৭২)

শুবাচ গ্রুপের লিংক: www.draminbd.com

All Link : শুবাচে প্রকাশিত গুরুত্বপূর্ণ লেখা

All Link

All Links/1

All Links/2 শুবাচির প্রশ্ন থেকে উত্তর

All Links/3

 

 
 
error: Content is protected !!