সহজসূত্রে ষত্ববিধান/১

ড. মোহাম্মদ আমীন
ই-কার ও উ-কারের পর /মূর্ধন্য-ষ/
আসহ কিন্তু বিষহ কেন?
সন্ধিবদ্ধ, সমাসবদ্ধ কিংবা উপসর্গজাত শব্দের পরপদে কখনও /স/ আবার কখনও /ষ/ হয়। উভয় বর্ণের উচ্চারণ প্রায় অভিন্ন হওয়ায় /স/ আর /ষ/ নিয়ে বানানে ভুল হতে দেখা যায়। এ ভুল হতে মুক্ত হতে নিচের সরল সূত্রটি আপনার সহায়ক হতে পারে।
সূত্র: অ-স্বর বা আ-স্বরের পর /দন্ত্য-স/ হবে, কিন্তু /ই/ঈ/ বা /উ/ঊ/-স্বরের পর /মূর্ধন্য-ষ/ হয়।
যেমন: সহ, আসহ কিন্তু বিষহ। পুরস্কার, কিন্তু পরিষ্কার। তেমনি: বহিষ্কার।
ই-ঈ নিয়ে ষত্ব-বিধানের কয়েকটি উদাহরণ: চিকির্ষা, চিকির্ষু, জিগীষা, জিগীষু, জিজীবিষা, জিজীবিষু, মুমূর্ষা, মুমূর্ষু, শুশ্রূষা, শুশ্রূষু।
 
সম্ভাষণসূচক শব্দে এ-কারের পর /মূধন্য-ষ/ হয়। যেমন: কল্যাণবরেষু, কল্যাণীয়েষু, কল্যাণীয়বরেষু, প্রিয়বরেষু, প্রিয়ভাজনেষু, প্রীতিভাজনেষু, শ্রদ্ধাভাজনেষু, বন্ধুবরেষু, শ্রদ্ধাস্পদেষু, শ্রীচরণেষু, সুচরিতেষু, সুজনেষু, সুহৃদবরেষু, স্নেহাস্পদেষু ইত্যাদি।তবে, সম্ভাষণসূচক স্ত্রীবাচক শব্দে আ-কারের পর /দন্ত্য-স/ হয়। যেমন: কল্যাণীয়াসু।
error: Content is protected !!