স্বদেশ: কবি গোবিন্দচন্দ্র দাসের স্বদেশ কবিতা: স্বভাবকবি

সংকলনে:  ড. মোহাম্মদ আমীন
সংযোগ: https://draminbd.com/স্বদেশ-কবি-গোবিন্দচন্দ্/
স্বদেশ কবিতাটি কবি ১৯০৭ খ্রিষ্টাব্দে মোতাবেক ১৩১৪ বঙ্গাব্দে ময়মনসিংহে রচনা করেছেন। কবিতাটি যোগেন্দ্রনাথ গুপ্ত সম্পাদিত গোবিন্দ চয়নিকা কাব্য সংকলন (১৯৪৮) থেকে নেওয়া হয়েছে। মূল গ্রন্থ হতে কবিতাটি গৃহীত। 
স্বদেশ
গোবিন্দচন্দ্র দাস
স্বদেশ স্বদের কর্চ্ছ কারে? এদেশ তোমার নয়—
এই যমুনা গঙ্গানদী, তোমার ইহা হ’ত যদি,
পরের পণ্যে, গোরা সৈন্যে জাহাজ কেন বয়?
গোলকুণ্ডা হীরার খনি, বর্ম্মা ভরা চুণি মণি
সাগর সেঁচে মুক্তা বেছে পরে কেন লয়?
স্বদেশ স্বদের কর্চ্ছ কারে? এদেশ তোমার নয়
এই যে ক্ষেতে শস্য ভরা, তোমার ত নয় একটি ছড়া,
তোমার হ’লে তাদের দেশে চালান কেন হয়?
তুমি পাও না একটি মুষ্টি, মরছে তোমার সপ্তগোষ্ঠী
তাদের কেমন কান্তি পুষ্টি— জগৎ ভরা জয়।
তুমি কেবল চাষের মালিক, গ্রাসের মালিক নয়!
স্বদেশ স্বদের কর্চ্ছ কারে? এদেশ তোমার নয়
এইযে জাহাজ, এইযে গাড়ী, এইযে পেলেস্‌— এই যে বাড়ী,
এইযে থানা জেহেলখান— এইযে বিচারালয়,
লাট, বড়লাট তারাই সবে, জজ, মাজিষ্টর তারাই হবে,
চাবুক খাবার বাবু কেবল তোমরা সমুদয়—
বাবুর্চি, খানসামা, আয়া, মেথর, মহাশয়!
স্বদেশ স্বদের কর্চ্ছ কারে? এদেশ তোমার নয়,
আইনকানুনের কর্ত্তা তারা, তাদের স্বার্থ সকলধারা,
রিজার্ভ করা সুখ সুবিধা তাদের ভারতময়।
তোমার বুকে মেরে ছুরি, ভর্ছে তাদের তেরজুরি
তাদের তারেচে তাদের নাচে তাদের ‘বলে’ ব্যয়’,
একশ রকম টেক্স দিবা ব্যয়ের বেলায় তোমার কিবা
গাধার কাছে বাধার বল বাঘের কবে ভয়?
স্বদেশ স্বদের কর্চ্ছ কারে? এদেশ তোমার নয়।
স্বদেশ স্বদেশ করিস্ কারে, এদেশ তোদের নয়
যেদেশ যাদের অধিকার, তারাই তাদের বল্তে পারে
কুকুর মেকুর ছাগল কবে, দেশের মালিক হয়?
যেসব বাবু বিলাত গিয়ে, ‘বাবুনি’দের সঙ্গে নিয়ে,
প্রসবিয়ে আনছে তাদের শাবক সমুদয়।
‘বৃটিশ বরণ, ব’লে দাবী— কর্লে নাকি বিলাত পাবি?
লজ্জাহীনের গোষ্ঠী তোরা নাইক লজ্জা ভয়!
এই যদিরে ‘বৃটিশ বরণ’ মরণ কারে কয়?
স্বদেশ স্বদেশ করিস কারে, এদেশ তোমার নয়,
কা’র স্বদেশে কাদের মেয়ে, এমনতর পথে পেয়ে.
জোর-জবরে গাড়ীর ভিতর, শাড়ী কেড়ে লয়।
নপুংসকের গোষ্ঠী তোরা, জন্ম-অন্ধ কানা খোঁড়া
ভিস্তিয়ালাস পাঙ্খাখুলি— পীলা ফাটায় ভয়!
কার স্বদেশে সর্ব্বনেশে এমন অভিনয়?
স্বদেশ স্বদেশ করিস্ কারে, এদেশ তোদের নয়!
যাহার লাঠী তাহার মাটী, চিরদিনের কথা খাঁটি,
এত নহে চা’র পেয়ালা চুমুক দিলে জয়!
রুখতে যারা কাঁপে ডরে, মারবার আগে আপ্নি মরে
খুসির বদল খুসি করে— ‘সেলাম মহাশয়!’
স্বদেশ স্বদেশ করিস্ কারে, এদেশ তোদের নয়!
স্বদেশ স্বদেশ করিস্ কারে, এদেশ তোদের নয়!
সোনার বাঙ্গলা সোনার ভূমি, হীরার ভারত বল্লে তুমি,
ভারত তোমার আসবে কোলে, এই কি মনে লয়?
‘সোনা’ ‘যাদু’ মিষ্টি ভাষে, ছেলে মেয়ে কোলে আসে,
স্বরাজ তাতে নাহি নারাজ, চাহে কাজের পরিচয়!
কবির কথায় তুষ্ট নাহে, ‘ভবি’ মহাশয়!
স্বদেশ স্বদেশ করিস্ কারে, এদেশ তোদের নয়!
তাদের রাজ্যে তোদের থাকা, তোদের বেঙ্কে তাদের টাকা
তাদের নোটে ভারত ঢাকা— বিশাল হিমালয়!
তাদের কলে তোরাই কুলি, তারাই নিচ্ছে টাকাগুলি,
তোদের কেবল ভিক্ষার ঝুলি— ক্ষুধায় মৃত্যু হয়!
তারাই রাজা, তারাই বণিক, তারাই সমুদয়!
১০
স্বদেশ স্বদেশ করিস্ কারে, এদেশ তোদের নয়,
কিসের বা তোর নেপাল ভুটান, সবাই তাদের পায়ে লুটান,
কুত্তার মতন পুচ্ছ গুটান— শিয়াল দেখে ভয়!
ওই যে ওদের ‘কাটমুণ্ডু’, সত্যই ও ‘কাটামুণ্ডু’,
রাহুর যেমন মরা ‘তুণ্ডু’ হা করিয়ে রয়!
কেতুর মতন পুচ্ছ লুটান ভুটান মহাশয়!
১১
স্বদেশ স্বদেশ করিস্ কারে, এদেশ তোদের নয়,
করদ মিত্র— নবাব রাজা, সবাই দেখি দক্ষ সাজা,
একটাও নয় মানুষ তাজা— অজার মাথা বয়,
ওগুলা সব মানুষ হলে— কোন্‌ দিকে কে যেত চলে,
ডেনিস পেনিস টেনিস খেলে, ভারতভূমি লয়?
মরু দেশের গরু কাটা ভারত করে জয়?
১২
স্বদেশ স্বদেশ করিস্ কারে, এদেশ তোদের নয়,
যখন বাদশা মুসলমান, তখন তাদের ‘হিন্দুস্থান’
ইংরেজ ‘ ইণ্ডিয়া’ বলে এখন কেড়ে লয়!
অযোধ্য কই— ‘আউধ’ এযে, দাক্ষিণাত্য— ডেকান সে যে
‘সিলনে’ গিলছে লঙ্কা— মণি মুক্তময়!
ডামাউন আর ডিয়ো গোয়া, চুণি পান্না সোনার মোয়া,
যায় না তাদের ধরাছোঁয়া, কে দেয় পরিচয়?
বারণাবাত ইন্দ্রপ্রস্থ— কই সে তোদের সমস্ত,
‘দিল্লী’র পরে ‘ডিল্লী’ হলো, আরো বা কি হয়!
স্বদেশ বলে কর্লে দাবি, আর কি তোরা এদেশ পাবি?
এ নয় তোদের ভারতবর্ষ— চির হর্ষ-ময়!
১৩
স্বদেশ স্বদেশ করিস্ কারে, এদেশ তোদের নয়,
কই সে শিল্প, কই সে কৃষি, কই সে যজ্ঞ— কই সে ঋষি,
কই সে পুণ্য তপোবনে ব্রহ্ম-বিদ্যালয়?
কোথায় বা সে ব্রহ্মচর্য্য, অসীম স্থৈর্য্য, অসীম ধৈর্য্য,
কই বা উগ্র সেই তপস্যা— ইন্দ্রে লাগে ভয়?
কোথায় অসীম সৌর্য্য-বীর্য্যে অসুর পরাজয়?
স্বপ্নে দেখে গোলাগুলি, চমকে উঠিস্ ভেড়াগুলি
উইয়ের ঢিবি দেখে তোদের শিবির বলে ভয়!
প্তিজনের প্রতি বক্ষে, কোটি কোটি লক্ষে লক্ষে
কই সে তোদের দেশ ভক্তির দুর্গ সমুদয়,
বিশ্বগ্রাসী অগ্নিসিন্ধু, কই সে বুকের রক্তবিন্দু,
স্পর্শ থাকুক দর্শনে তার, শত্রুকুল ক্ষয়!
লোহার চেয়ে মহাশক্ত, ভক্ত-বীরের মাংস-রক্ত,
তাদের বুকের অস্থি দিয়া বজ্র তৈয়ার হয়,
ব্রহ্মাবর্ত্তে প্রথম আসি, তাইতে তারা দৈত্য নাশি
পুণ্যভূমি ভারতভুমি প্রথম করে জয়!
তাদের ‘স্বদেশ’ ভারত ছিল তোদের স্বদেশ নয়!
কবি গোবিন্দচন্দ্র দাসের কবিতা: বাঙালি: 
error: Content is protected !!