সৌদিয়া মক্কা সংঘর্ষ : মদীনা শেষ

ড. মোহাম্মদ আমীন

হঠাৎ মোবাইল বেজে ওঠল। পর্দায় চোখ দিলাম। দিদার সাহেব রিং করেছেন। বেশ ভালো লোক দিদার সাহেব। সংবাদিক মানুষ তিনি, খালি দেশ-বিদেশ ঘুরে বেড়ায়।
আপনি কোথায়?
আমি মক্কায়, মোবাইলে দিদার সাহেবের গলা আরো আর্দ্র হয়ে ওঠল। স্বরে, সরের চিহ্নমাত্র নেই, বরং প্রচণ্ড বিষাদ। অনেক বিপদে বিপর্যস্ত হলে মানুষের কথা এমন বিষাদময় শোনায়।
কী হয়েছে?
দিদার সাহেব বললেন, মক্কায় যাচ্ছিলাম। আপনি তো জানেন মক্কা আমার খুব প্রিয়। হঠাৎ বলা নেই, কওয়া নেই– সৌদিয়া, মক্কা আক্রমণ করে বসল।
কী বললেন?
দিদার সাহেব বললেন, সৌদিয়ার লোকজন খুব খারাপ। ধনী হলে কি খারাপ হতে হয়?
সৌদিয়ার লোকেরা কী করেছে?
দিদার সাহেব বললেন, তারা মদীনাকেও আক্রমণ করে বসেছে।
আরে ভাই কী হয়েছে আগে তা বলুন।
মক্কায় যাচ্ছিলাম, দিদার সাহেব বললেন।
তারপর?
সৌদিয়ার কাছাকাছি যেতেই এক দল লোক আকস্মিক মক্কা আক্রমণ করে বসল। তারা মক্কার লোকদের এলোপাতাড়ি মারতে শুরু করে।
মক্কার লোকেরা কী দোষ করেছে যে, সৌদিয়ার লোকজন আক্রমণ করল?
দিদার সাহেব বললেন, মক্কা নাকি সৌদিয়াকে কোনো উস্কানি ছাড়াই আক্রমণ করেছে। মক্কা বেপরোয়া হয়ে গেছে।
সৌদিয়ার আর মক্কা, দুটো তো একই দেশের।
দিদার : তাই তো।
তারপর কী হলো?
দিদার : সৌদিয়া বড়ো না মক্কা বড়ো?
সৌদিয়া।
দিদার সাহেব কষ্টগলায় বললেন, বড়ো কি ছোটোকে ধাক্কা দিতে পারে? পারে না। দিলেও ওই ধাক্কায় বরং ছোটো যে, তারই ক্ষতি হয়। না কি?
তারপর কী হলো?

দিদার সাহেব বলল, আমি মক্কায় বসে সৌদিয়ার লোকজনের আক্রমণ দেখলছিলাম। এসময় সৌদিয়ার কয়েকজন লোক মদীনার ওপর আক্রমণ করে বসল।
ঠিক বলছেন তো?
দিদার সাহেব বললেন, মদীনা- একদম নীরিহ। এমন জঘন্য কাণ্ড আরে দেখিনি।
আপনি মক্কায় যাচ্ছিলেন কেন?
দিদার সাহেব বললেন, আমি তো প্রতিদিন মক্কায় যায়?
কিন্তু, আমি তো প্রতিদিনই আপনাকে বাংলাদেশে দেখি।
আরে ভাই আমি বলছি, মক্কা নামের গাড়ি করে মীরপুর যাওয়ার কথা। সৌদিয়ার মক্কা নয়।
 সৌদিয়া কী?
সৌদিয়া নামের পরিবহণ।

তাহলে মদীনা ?

মক্কা পরিবহণের মক্কা নামের গাড়ির একজন মহিলা যাত্রী। 

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Language
error: Content is protected !!