দুষ্ট বানান /১

ড. মোহাম্মদ আমীন

অংসকুট : ষাঁড়ের কাঁধের মাংসপিণ্ড।
অকল্মষ : নিষ্পাপ।
অমৎসর : পরশ্রীকাতর নয় এমন, বিদ্বেষহীন।
অমম : মমতাহীন, মমতাশূন্য।
অমরতরু : লোকবিশ্বাসমতে স্বর্গের পাঁচটি দেবতরু। পারিজাত, মন্দার, কল্পবৃক্ষ, সন্তানবৃক্ষ ও হরিচন্দন।
অমর্ত্য : পার্থিব নয়, স্বর্গীয়, অবিনাশী।
অমর্ষ : ক্ষমাশূন্যতা, অসহিষ্ণুতা, ক্ষমাহীন, ক্রোধান্ধ।
অমিত : প্রচুর, অঢেল।
অমৃতলোক : বেহেশত।
অযাথার্থ্য : অন্যায্যতা, সততার অভাব।
অযোগবাহ : যে বর্ণের সঙ্গে অন্য স্বর বা ব্যঞ্জনের যোগ কল্পিত হয়নি। ং এবং ঃ। অনুস্বর ও বিসর্গকে অযোগবাহবর্ণ বলা হয়।
অরদ : দন্তহীন।
অয়স্কঠিন :লোহার মতো কঠিন
অয়স্কান্ত : চুম্বক।
অর্যমা : সূর্য।
অর্হৎ : বুদ্ধ।
অলক্ষণে কিন্তু অলুক্ষনে।
অলখ : দৃষ্টির অগোচরে, অলখবিহারী : দৃষ্টির বাইরে বিচরণকারী।
অলখঝোরা : চোখের আড়ালে অবস্থিত ঝরনা।
অশুদ্ধিপত্র : ভ্রমাত্মক মুদ্রণের সংশোধনতালিকা।
অশ্রু অর্থ চোখের জল, নয়নের জল কিন্তু অশ্রুবারি অর্থ নয়নের জল। সে হিসেবে অশ্রু শব্দের আর একটি অর্থ চোখের জল, নয়নের জল।
অষ্টধর্ম : পৌরাণিকমতে মানবচরিত্রের আটটি ধর্ম। সত্য, শৌচ, অহিংসা, অনসুয়া, ক্ষমা, অনৃশংসা, অকার্পণ্য ও সন্তোষ।
অষ্টনায়িকা : পৌরাণিকমতে আট জন নায়িকা। মঙ্গলা, বিজয়া, ভদ্রা, জয়ন্তী, অপরাজিতা, নন্দিনী, নারসিংহী ও কৌমারী।
অশীধারাব্রত : শয্যায় স্ত্রী ও পুরুষের মাঝে উন্মুক্ত তরবারি রেখে যৌনমিলন থেকে বিরত থাকার ব্রতবিশেষ।
অসীমন্তিনী : যে নারীর সিঁথিতে সিঁদুর নেই, বিধবা।

অষ্টকুলাচল : পুরাণোক্ত আটটি কুলপর্বত।মহেন্দ্র, মলয়,সহ্য, শক্তিমান, ঋক্ষ, বিন্ধ্য, পরিযাত্র ও হিমালয়।
অষ্টদিকপাল : পৌরাণিকমতে আট দিকের কল্পিত আট জন অধীশ্বর। ইন্দ্র পূর্বদিকের, বহ্নি অগ্নিকোণের, যম দক্ষিণদিকের, নৈর্ঋতি নৈর্ঋতকোণের, বরুণ পশ্চিমদিকের, মরুৎ বায়ুকোণের, কুবের উত্তরদিকের এবং ঈশ ঈশানকোণের।
অষ্টধাতু : আটটি ধাতুর সমাহার। সোনা, রুপা, তামা, পিতল, দস্তা, কাঁসা, সিসা ও লোহা।
অষ্টনাগ : পৌরাণিকমতে অষ্টবিধ সর্প। অনন্ত, বাসুকী, পদ্ম, মহাপদ্ম, তক্ষক, কুলীর, কর্কট ও শঙ্খ।

অষ্টপাশ : আট প্রকার মায়াবন্ধন। ঘৃণা, লজ্জা, মান, অপমান, মোহ, দম্ভ, দ্বেষ ও পৈশুন্য।

অষ্টপ্রহর : দিবারাত্র, দিবারাত্রব্যাপী, সংকীর্তন।

অষ্টবজ্র : বজ্রতুল্য আটটি দেবাস্ত্র। বিষ্ণুর সুদর্শনচক্র, শিবের ত্রিশুল, ব্রহ্মার অক্ষ, ইন্দ্রের বজ্র, বরুণের পাশ, যমের দণ্ড, কার্তিকের শক্তি এবং দুর্গার অসি।

অষ্টবসু : পৌরাণিকমতে গঙ্গা থেকে উৎপন্ন দক্ষকন্যার আট জন পুত্র এবং অষ্ট গণদেবতা। ভব, ধ্রুব, সোম, বিষ্ণু, অনিল, অনল, প্রত্যুষ ও প্রভাস।

অষ্টমূর্তি :শিবের আটটি মূর্তি।ক্ষিতি, জল, অগ্নি, বায়ু, আকাশ, যজমান, সোম ও সূর্য।

অষ্টযোগিনী : দুর্গার আট জন সখী। শৈলপুত্রী, চণ্ডঘণটা, স্কন্দমাতা, কালরাত্রি, চণ্ডিকা, কুষ্মাণ্ডী, কাত্যায়নী ও মহাগৌরী।

অষ্টরস : অলংকারশাস্ত্রে বর্ণিত অষ্টরস। শৃঙ্গার, বীর, করুণ, অদ্ভুত, হাসা, ভয়ানক, বীভৎস ও রৌদ্র।

অষ্টসখী : শ্রীকৃষ্ণের আট জন লীলাসঙ্গিনী। রাধিকা, ললিতা, বিশাখা, সুচিত্রা, চম্পকলতা, রঙ্গদেবী, সুদেবী ও তুঙ্গদেবী।

অষ্টসিদ্ধি : শিবের যোগলব্ধ অষ্টবিধ ঐশ্বর্য এবং যোগের আটটি অঙ্গ। অণিমা, মহিমা, গরিমা, লঘিমা, প্রাপ্তি, প্রাকাম্য, ঈশিত্ব ও বশিত্ব।

অষ্টাঙ্গ : মানব দেহের আটটি অঙ্গ। দুই হাত, হৃদযন্ত্র, কপাল, দুই চোখ, কণ্ঠ ও মেরূদণ্ড; মতান্তরে পায়ের দুই বৃদ্ধাঙ্গুলি, দুই হাটু, দুই হাত, বক্ষ ও নাসিকা।

অষ্টাপদ : সোনা, পাশা খেলার ছক, আট পা-বিশিষ্ট প্রাণী, অক্টোপাশ, মাকড়সা, ঊর্ণনাভ প্রভৃতি।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Language
error: Content is protected !!