শুদ্ধ বানান চর্চা প্রমিত বাংলা বানান বিধি

অধ্যাপক হায়াৎ মামুদ

‘শুদ্ধ বানান চর্চা প্রমিত বাংলা বানান বিধি’ নতুন কোনো বানান বিধি নয়। আসলে বাংলা একাডেমি প্রণীত ‘প্রমিত বানান রীতি’র সহজ এবং সর্ববোধগম্য বর্ণন-কৌশলই ‘শুদ্ধ বানান চর্চা প্রমিত বাংলা বানান বিধি’।‘শুদ্ধ বানান চর্চা (শুবাচ)’, হচ্ছে শুদ্ধ বাংলা চর্চা এবং তার প্রচার ও প্রসারে নিবেদিত লক্ষাধিক প্রাজ্ঞ সদস্য নিয়ে গঠিত বিশ্বব্যাপী বিস্তৃত একটি সক্রিয় গোষ্ঠী। এই গোষ্ঠীর সদস্যবর্গ ‘শুবাচি’ নামে পরিচিত। শুবাচ সারাবিশ্বে শুদ্ধ বাংলা চর্চার সর্ববৃহৎ প্রতিষ্ঠান। এই গ্রুপে প্রতিদিন অনেক অভিজ্ঞ ভাষাবিদ ও বৈয়াকরণদের লেখা ‘বাংলা বানান ও বাংলা ভাষাবিষয়ক’ বহু যযাতি(post) প্রকাশিত হয়। হাজার হাজার শুবাচি এসব যযাতির আলোচনা-পর্যালোচনায় অংশগ্রহণ করে প্রাজ্ঞিক মন্তব্য করে থাকেন।

শুবাচগোষ্ঠীর উপদেষ্টা এবং বৈয়করণবৃন্দ দীর্ঘ তিন বছর যাবৎ শিক্ষিত বাংলাভাষী শুবাচিগণের মাতৃভাষাজ্ঞান পর্যবেক্ষণ করে বাংলা বানানে তাঁদের কোথায় ভুল হয় এবং কেন হয় আর তা কীভাবে দূরীভূত করা যায় ইত্যাদি পর্যবেক্ষণ করেছেন। মূলত এই পর্যবেক্ষণের আলোকে বাংলাভাষীর ভুলগুলো সংশোধনের লক্ষ্যে আলোচ্য গ্রন্থটি রচিত।

ড. মোহাম্মদ আমীনের অনুরোধে আমি শুবাচের প্রধান উপদেষ্টা হিসেবে ২০১৩ খ্রিষ্টাব্দের সেপ্টেম্বর থেকে নিয়মিত কাজ করে আসছি। শুবাচের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ড. মোহাম্মদ আমীনের নেতৃত্বে ‘শুদ্ধ বানান চর্চা (শুবাচ)’ বাংলা বানান চর্চায় যে ভূমিকা রেখে চলেছেন- তা বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের ইতিহাসে স্মরণীয় হয়ে থাকবে। ইতঃপূর্বে আর কোনো সংগঠন বাংলা ভাষা বিষয়ে বিশ্বব্যাপী এমন সম্মিলিত আন্দোলন গড়ে তুলতে পারেনি। এমন একটি সংগঠনের উপদেষ্টা হিসেবে কাজ করার সৌভাগ্য আমার গর্ব এবং আনন্দের বিষয়।

ড. মোহাম্মদ আমীন, শুবাচের উপদেষ্টা পরিষদ এবং কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্যবৃন্দ-সহ সকল শুবাচির প্রতি রইল আমার শ্রদ্ধা আর কৃতজ্ঞতা। কেননা এই গ্রন্থ রচনায় তাঁদের প্রত্যেকের অবদান রয়েছে। তাঁরা সম্মিলিতভাবে বাংলা ভাষার প্রচার-প্রসারে যে ব্যতিক্রমধর্মী ও কার্যকর প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন তা প্রাতিষ্ঠানিক স্বীকৃতির অপেক্ষা করে না। ইতিহাস ও ভবিষ্যৎ প্রজন্ম এই মহৎ উদ্যোগকে স্মরণীয় করে রাখবে— এটি আমি মনেপ্রাণে বিশ্বাস করি।

কালজয়ী উদ্যোগ, নিবিড় পর্যবেক্ষণ, ঋদ্ধিক অনুসন্ধান আর কার্যকর গবেষণার মাধ্যমে লিখিত ‘শুদ্ধ বানান চর্চা প্রমিত বানান বিধি’ নামের অমূল্য এই গ্রন্থটি শুদ্ধ বাংলা চর্চায় একটি মাইল ফলক হয়ে থাকবে। আমি ড. মোহাম্মদ আমীনের এমন উদ্যোগকে গভীর কৃতজ্ঞতার সঙ্গে স্বাগত জানাই।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Language
error: Content is protected !!